পালকি ভাড়া

রুপকথার মত তৈরী করুন আপনার ইতিহাস

স্বপ্নের রুপকথার মত তৈরী করুন আপনার ইতিহাস। যান্ত্রিক সভ্যতার এই যুগে অসাধারন চিত্র ফুটিয়ে তুলতে পালকি ভাড়া নিন। গায়ে হলুদ,বিয়ে, জন্মদিন,সংবর্ধনা, প্রচারনা,ব্র্যান্ডিং,শুটিং সহ যে কোন অনুষ্ঠানের আয়োজনটা ব্যতিক্রমী ও রাজকীয় করে তুলবে পালকি। পরিচিত বলয়ে আপনার শৈল্পিক মার্জিত রচির পরিচয় করিয়ে দিবে পালকি। আমাদের রয়েছে ট্রেডিশনাল পালকি, এরাবিয়ান পালকি, ময়ূর পালকি,ঘর পালকি। ঐতিহ্যবাহী এই পালকি যেনো চিরতরে হারিয়ে না যায় তাই অত্যন্ত সুলভে এই সেবা টি আমরা চালু করেছি। আমাদের ফোন করুন ০১৬২৭-৩৫৫৩৮২  

 

    • স্টেজ ডেকোরেশন
    • প্রবেশ পথ ডেকোরেশন
    • ডালা সেট,
    • চেয়ার রিবন
    • কার/বাসর ডেকোরেশন
    • হেড টেবিল ডেকোরেশন
    • ফটোগ্রাফী
    • ভিডিওগ্রাফী
    • ডিজে ও সাউন্ড
    • কাওয়ালী
    • পুঁথি পাঠ
    • জারী/কবি গান
    • সাপের খেলা
    • বানরের নাচ
    • রেশমী চুড়ি
    • বায়োস্কোপ
    • রকমারি পিঠা

জানা বিশেষ প্রয়োজন

 জানা বিশেষ প্রয়োজন

গ্রাম বাংলার কিছু চিরায়ত বাঙ্গালিয়ানার নিদর্শন যা আমাদের প্রতিটি বাঙ্গালীর বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের শহর বা গ্রামঞ্চল ভেদে প্রতিটি নাগরিকের জানা বিশেষ প্রয়োজন। পালকি নামক এই শব্দের সাথে আমাদের ভবিষ্যত বংশধর পরিচিতি হারিয়ে ফেলবে যেহেতু হারিয়ে যাওয়া আমাদের এই ঐতিহ্যগুলো সম্পর্কে তাদের কোন ধারণা থাকবে না সেহেতু তারা বুঝতে পারবে না একটি গৌরবময় জাতি হিসেবে পৃথিবীর বুকে আমাদের নিজস্ব স্বকীয়তা।

পালকি ও আমাদের ইতিহাস

বাংলায় পালকির ইতিহাস হাজারো বছরের। মরক্কোর পর্যটক ইবনে বতুতা ১৩৪৬ খ্রিস্টাব্দে বাংলায় সফর কালে পালকিতে চড়েন বলে উল্লেখ আছে। বাংলায় সতেরো ও আঠারো শতকে ইউরোপীয় বণিকরা হাটে-বাজারে যাতায়াত এবং তাদের মালপত্র বহনের জন্য পালকি ব্যবহার করত। তারা পালকি ব্যবহারে এতটাই অভ্যস্ত হয়ে পড়ে যে, কোম্পানির একজন স্বল্প বেতনের সাধারণ কর্মচারীও এদেশে যাতায়াতের জন্য একটি পালকি রাখত ও তার ব্যয়ভার বহন করত।

শখ যেনো হারিয়ে না যায়।

পাশ্চাত্য ধ্যান ধারণার প্রভাব, নগরায়ন এবং প্রযুক্তির প্রভাবে বেড়ে উঠা প্রজন্মের কাছে একটি দিনের জন্য প্রতিকী হলেও আমাদের ঐতিহ্যের গভীরতম বিষয়কে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার দায়িত্ব আমাদের সবার। আমাদের নতুন প্রজন্মের কাছে উম্মোচিত হোক সোনালী ঐতিহ্যের ইতিহাস। আমরা চাই প্রতিটা মানুষ শেকড়ের কাছে ফিরে আসুক। আত্নমর্যাদা বহন করুক তার প্রতিটা উৎসবে। যুগের সাথে তালমিলিয়ে সবকিছুই হারিয়ে গেলে শখ যেনো হারিয়ে না যায়।

পালকি ক্রয় ও ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা

কোর্ট অব ডিরেক্টরস ১৭৫৮ খ্রিস্টাব্দে সাধারণ কর্মচারীদের পালকি ক্রয় ও ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। বস্ত্তত, সে যুগের পালকি ছিল এ যুগের মোটর গাড়ির অনুরূপ। প্রত্যন্ত অঞ্চলে দীর্ঘদিন ধরে বিয়ে ও অন্যান্য শুভ অনুষ্ঠানে বর-কনের জন্য পালকি ব্যবহারের প্রথা চালু ছিল। এছাড়া অসুস্থ রোগীকে চিকিৎসালয়ে নেওয়ার জন্যও পালকি ব্যবহৃত হতো। ১৮২৭ সরকারি হুকুমনামার বিরুদ্ধে পালকি চালানো বন্ধ করে  পালকি বাহকেরা ধর্মঘট করেছিল। 

সেই অনাধুনিক যুগে বারবার ফিরে যেতে ইচ্ছে করে।

সেই অনাধুনিক যুগে বারবার ফিরে যেতে ইচ্ছে করে। কারণ, সেই সময়ের যে আনন্দ আর জীবন ভোগের উপকরণ আমরা পেয়েছিলাম সেগুলো ছিল একেবারেই নির্ভেজাল, প্রকৃতির গর্ব থেকে উঠে আসা। যান্ত্রিক যুগে জীবনকে উপভোগের উপকরণে অনেক বৈচিত্র এসেছে বটে, সেগুলোতে প্রকৃতির সেই নির্ভেজাল রূপ কোথায়? তাই তো এসবে হাফিঁয়ে উঠা মন বারবার ফিরে যেতে চায় অনাধুনিক যুগে। সেখানেই রয়েছে আমাদের অস্তিত্বের মূল শেকড়। এর টানকে অস্বীকার করে সাধ্য কার?

পালকি বাহক বেহারা

পালকি বিভিন্ন আকৃতি ও ডিজাইনের হয়ে থাকে। পালকি বাহকদের বলা হয় বেহারা। কাহার হাড়ি, মাল, দুলে, বাগদি, বাউড়ি প্রভৃতি সম্প্রদায়ের লোক পালকি বহন করত। মুসলিম বেহারাদের ডাকা হত দুলিওয়ালা বা সওয়ারিওয়ালা। বেহারারা পালকি বহন করার সময় নির্দিষ্ট ছন্দে পা ফেলে চলতে হয়। পালকি বহনের সময় তারা বিশেষ ছন্দে গান গায়। তাদের চলার গতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে গানের তাল-লয় পরিবর্তিত হয়।

আমরা আছি

২৪ ঘন্টা ৩৬৫ দিন

আমাদের ই-মেইল
info@bmsrental.com

 

আমাদের ফোন

০১৬২৭-৩৫৫-৩৮২/৩

error: Content is protected !!